Krishnochura o Radhachurar Golpo

কৃষ্ণচূড়া ও রাধাচূড়ার গল্প

Product Summery

জীবনের অবয়ব জুড়ে লেপটে থাকা আমাদের প্রতিটি দিনের আঁচল- বোনা হয় হরেক অনুভূতির সুতোয়। বাৎসল্য, ভালোবাসা, বিদ্বেষ, ঘৃণা, প্রেম-অপ্রেম, কাছে আসা অথবা দূরে যাওয়া- এই তো জীবন। আবেগে মথিত হৃদয়ের কন্দরে কিংবা বাস্তবের কষাঘাতে বিদীর্ণ জীবনে রচিত হয় কত শত গল্প। এই সংকলনের আটটি গল্প জুড়ে রয়েছে সেই সব আলেখ্য, আমাদেরই জীবনের গল্প- কারও কৃষ্ণচূড়ার, কারও বা রাধাচূড়ার। পৃষ্ঠা সংখ্যা: ১২৮

আরও পড়ুন >

Tab Article

জীবনের অবয়ব জুড়ে লেপটে থাকা আমাদের প্রতিটি দিনের আঁচল- বোনা হয় হরেক অনুভূতির সুতোয়। বাৎসল্য, ভালোবাসা, বিদ্বেষ, ঘৃণা, প্রেম-অপ্রেম, কাছে আসা অথবা দূরে যাওয়া- এই তো জীবন। আবেগে মথিত হৃদয়ের কন্দরে কিংবা বাস্তবের কষাঘাতে বিদীর্ণ জীবনে রচিত হয় কত শত গল্প। এই সংকলনের আটটি গল্প জুড়ে রয়েছে সেই সব আলেখ্য, আমাদেরই জীবনের গল্প- কারও কৃষ্ণচূড়ার, কারও বা রাধাচূড়ার। পৃষ্ঠা সংখ্যা: ১২৮

Tab Article

নবম শ্রেণিতে পড়াকালে প্রথম কবিতা লেখা। তারপর মাঝেমধ্যে পত্রিকায় কলাম, টুকটাক কবিতা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্থনীতিতে স্নাতক পড়াকালীন Romantics (Romance plus Economics) নামের লিটল ম্যাগাজিনের সম্পাদনা। পড়াশােনা, ক্যারিয়ার, সংসার এসবের ব্যস্ততার মাঝে কবে যেন বিস্মৃত হয়েছিলেন নিজের একান্ত ভুবনটির কথা। দীর্ঘ যুগ পেরিয়ে আবার যখন কলম হাতে নিলেন, ফিরে পেলেন হারানাে সে আনন্দ। আর নতুন করে এ পথে আসার অনুক্ষণ অনুপ্রেরণা যুগিয়েছেন একজন ছায়াসঙ্গী, যিনি নিজেও সাহিত্য ও সংগীতচর্চায় নিবেদিত। একমাত্র সন্তান পনের বছর বয়সী আবরার কম্পিউটার প্রােগ্রামিং ও সাহিত্যচর্চার সঙ্গে জড়িত। চট্টগ্রামের মাটিতে জন্ম এবং বেড়ে ওঠা। পিতা মরহুম ডা. মােহাম্মদ করম আলী ও মাতা নুরুন নাহার বেগমের সর্বকনিষ্ঠ সন্তান। প্রথম দুটি উপন্যাস ‘অতঃপর’ ও ‘জালবন্দি জীবন’ একুশে বইমেলা ২০১৯ ও ২০২০-এ অন্যপ্রকাশ থেকে প্রকাশিত। উপন্যাসের পাশাপাশি ছােটগল্প ও কবিতা লিখেন। এছাড়া দেশে এবং আন্তর্জাতিক জার্নালে অর্থনীতি বিষয়ে একাধিক গবেষণামূলক নিবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগ থেকে অনার্স ও মাস্টার্স ডিগ্রি, কানাডার ইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে এমএ এবং অস্ট্রেলিয়ার মােনাশ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেছেন। নিজের আনন্দের জন্যই লিখেন, সেই সঙ্গে সে আনন্দ ছড়িয়ে দিতে চান প্রিয় পাঠকদের মাঝে। কাজের অবসরে একটু সময় পেলেই তাই হাতে তুলে নেন কলম। পাঠকের ভালােবাসাই একমাত্র চাওয়া।

0 REVIEW for ' কৃষ্ণচূড়া ও রাধাচূড়ার গল্প'

No review found

ADD A REVIEW

Your Rating


content title
Loading the player...