প্রকৃতি

Items Showing 1 to 16 from 16 books results

গল্পগুলো বাড়ি গেছে

মাহরীন ফেরদৌস
  • ৳৩০

বাসায় ঢুকেই বুঝতে পারলাম গরুর মাংস রান্না হচ্ছে। কষানো মাংসের ঘ্রাণে বাড়িঘর ডুবে আছে। মনে হয় প্রায় সপ্তাহ দুয়েক পর আজকে বাসায় ভালো-মন্দ কিছু রান্না হচ্ছে। করিডোর দিয়ে যেতে যেতে এক ঝলক রান্নাঘরের দিকে তাকালাম। কে রান্না করছে, আম্মা নাকি মামি? দেখলাম মামি কাঠের বড় চামচ দিয়ে কড়াইয়ে প্রবল বেগে মাংস নাড়ছেন। কড়াই থেকে ধোঁয়া উঠছে। আমার পেটের ভেতরে খিদে তাণ্ডব নৃত্য শুরু করে দিলো। লম্বা পা ফেলে আম্মার ঘরের দিকে চলে গেলাম। আম্মা খাটে বসে কিবলামুখি হয়ে তসবি গুনছেন। আমি বাথরুমের দরজা যথাসম্ভব আস্তে খোলার চেষ্টা করলাম। আম্মা তাও টের পেয়ে গেলেন। ‘মনু নাকি! কখন আইছিস?’ ‘এই তো।’ ‘এই তো’ বলে আমি বাথরুমে ঢুকে গেলাম। আম্মার সঙ্গে কথা বাড়াতে চাই না। কী লাভ কথা বলে? কী বলব আমি?

কাচবন্দি সিম্ফনি

মাহরীন ফেরদৌস
  • ৳৫০

শব্দরা থেমে যায়... থেমে যেতে হয়, বহুদূর হেঁটে যাবার পরও। ঝিরিপথে একরাশ ভেজা বালির মতো জমে থাকা সেই শব্দ পেরিয়ে কিছু পথ হাঁটলে খুঁজে পাওয়া যায় অদ্ভুত এক নৈঃশব্দ্য। আর গাছের ছায়ায় পথভোলা হয়ে বসে থাকা যায় একটা জীবন। সেখানে চাঁদের আলোয় বাতাসের শব্দে ঝরে পড়ে চুপচাপ পাতারা। দ্বিমাত্রিক সেই পৃথিবীতে কেউ সূর্য খোঁজে না। মানুষের অনুভূতির চড়া সুরে পুড়ে গেছে অসংখ্য চোখের আলো, তৈরি হয়েছে নৈর্ব্যক্তিক কাচের দেয়াল। এক আকাশ ভরা জ্বলজলে তারার কোনো অর্থ নেই সেখানে, বরং একমাত্র ভাষা হলো শব্দ। অষ্টপ্রহর ফিরে ফিরে হয় শুধু কোলাহল, আর কখনোবা নীরবতা। তারপরও, যেদিন বিষণ্ন জ্যোৎস্না এসে সেই শহরের রোদভেজা পথে নতুন করে আলপনা তৈরি করে, সেদিন সেই ছায়া ছায়া শব্দগুলো কেমন একটা নির্যাসের মতো ছড়িয়ে পড়ে শহরময়। বন্ধ জানালায় বাধা পেয়ে দেয়ালের আড়ালে বেঁচে থাকা মানুষগুলোর কাছে ছুটে যেতে চায় অসংখ্য গল্প, কখনো না তৈরি হওয়া কোনো সিম্ফনির মতো... কাচবন্দি সিম্ফনি..

নিঃসঙ্গতার পাখিরা

হক ফারুক আহমেদ
  • ৳৪০

হারিয়ে যাওয়া গানের সুর কিংবা ঢাকা, বরিশাল ও নোয়াখালীর আঞ্চলিক ভাষায় কথোপকথনের বই ‘নিঃসঙ্গতার পাখিরা’। হঠাৎ কল্পনার মানুষের সাথে দেখা হওয়া, কখনো বিস্ময়, মুঠো কুয়াশার ভোর, আকাশ দেখা, আগস্টের বৃষ্টি কিংবা যন্ত্রণারা বেড়াতে যাওয়ার স্মৃতি কবিতায় তুলে ধরেছেন কবি। আত্মহননের স্মৃতিচারণ, নিঃসঙ্গতার শব্দ, অদৃশ্য বেদনাকে কেন্দ্র করে কবিতা কখনো চলে গিয়েছে বহু দূর পথে, আবার তাৎক্ষণিক ফিরে এসেছে পুরানো স্মৃতির শহরে! স্মৃতির মুহূর্তকে মনের সুতোয় আবদ্ধ করে এক অনন্য মালা গাঁথতে চেয়েছেন কবি। তিনি কতটা সার্থক হয়েছেন তার পাঠকই বলতে পারবেন।

বনবাণী

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
  • ফ্রি বই

প্রকৃতি প্রেমের এক অনবদ্য উপস্থাপন ‘বনবাণী’ কাব্যগ্রন্থ। গ্রন্থটি ১৯৩১ সালে প্রকাশিত হয়। সংকলিত কবিতাগুলোর শিরোনামেই স্পষ্ট করেছেন কবিতার বিষয়বস্তু। যেমন গ্রন্থের শুরুর কবিতাটির শিরোনাম ‘বৃক্ষবন্দনা’। গ্রন্থটির ভূমিকায় কবি লিখেছেন, ‘আমার ঘরের আশেপাশে যে-সব আমার বোবা-বন্ধু আলোর প্রেমে মত্ত হয়ে আকাশের দিকে হাত বাড়িয়ে আছে তাদের ডাক আমার মনের মধ্যে পৌঁছল। তাদের ভাষা হচ্ছে জীবজগতের আদিভাষা, তার ইশারা গিয়ে পোঁছয় প্রাণের প্রথমতম স্তরে; হাজার হাজার বৎসরের ভুলে-যাওয়া ইতিহাসকে নাড়া দেয়; মনের মধ্যে যে-সাড়া ওঠে সেও ঐ গাছের ভাষায়— তার কোনো স্পষ্ট মানে নেই, অথচ তার মধ্যে বহু যুগযুগান্তর গুনগুনিয়ে ওঠে।’

Items Showing 1 to 16 from 16 books results

Boighor

Stay Connected