Nemesis

নেমেসিস

Product Summery

পক্ষাঘাতগ্রস্থ অবস্থায় দেশের জনপ্রিয় লেখক খুন হলেন নিজ অ্যাপার্টমেন্টে। প্রথমবারের মত দৃশ্যপটে আবির্ভূত হয় ইনভেস্টিগেটর জেফরী বেগ। আপাত দৃষ্টিতে সহজ একটি কেস খুব দ্রুতই হয়ে যায় সমাধান। কিন্তু এরপরই ঘাঘু ইনভেস্টিগেটরের চোখে ধরা পড়ে সব অস্বাভাবিকতা, আসে একের পর এক সাসপেক্ট, কিন্তু সবই যেন ঘটনাকে আগের চেয়েও ঘোলাটে করে। সুপরিচিত ধানমণ্ডির বুকে ঘটে যাওয়া প্রতিশোধের এক টানটান উত্তেজনা পূর্ণ মনোজ্ঞ এবং মৌলিক এক ডিটেকটিভ থ্রীলার - নেমেসিস।

Tab Article

পক্ষাঘাতগ্রস্থ অবস্থায় দেশের জনপ্রিয় লেখক খুন হলেন নিজ অ্যাপার্টমেন্টে। প্রথমবারের মত দৃশ্যপটে আবির্ভূত হয় ইনভেস্টিগেটর জেফরী বেগ। আপাত দৃষ্টিতে সহজ একটি কেস খুব দ্রুতই হয়ে যায় সমাধান। কিন্তু এরপরই ঘাঘু ইনভেস্টিগেটরের চোখে ধরা পড়ে সব অস্বাভাবিকতা, আসে একের পর এক সাসপেক্ট, কিন্তু সবই যেন ঘটনাকে আগের চেয়েও ঘোলাটে করে। সুপরিচিত ধানমণ্ডির বুকে ঘটে যাওয়া প্রতিশোধের এক টানটান উত্তেজনা পূর্ণ মনোজ্ঞ এবং মৌলিক এক ডিটেকটিভ থ্রীলার - নেমেসিস।

Tab Article

মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিনের প্রথম প্রকাশিত মৌলিক গ্রন্থ ‘নেমেসিস’। বিপুল জনপ্রিয়তার কারণে পর পর চারটি সিক্যুয়েল (‘কন্ট্রাক্ট’, ‘নেক্সাস’, ‘কনফেশন’ ও ‘করাচি’) লিখতে হয়। সেগুলোও পায় ব্যাপক পাঠকপ্রিয়তা। এ ছাড়া তার উল্লেখযোগ্য রচনার মধ্যে রয়েছে ‘জাল’, ‘১৯৫২ নিছক কোনো সংখ্যা নয়’, ‘পেন্ডুলাম’, ‘কেউ কেউ কথা রাখে’ ‘রবীন্দ্রনাথ এখানে কখনও খেতে আসেননি’ , ‘রবীন্দ্রনাথ এখানে কখনও আসেন নি’ প্রভৃতি। শেষের দুটি উপন্যাসের গ্রহণযোগ্যতা ঈর্ষণীয়, অভাবনীয়। এই সিরিজ তাকে ব্যাপকভাবে জনপ্রিয় করেছে পশ্চিমবঙ্গসহ বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে থাকা বাংলা পাঠকের কাছে। সফল অনুবাদক ও জনপ্রিয় থ্রিলার লেখক মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিনের আরেকটি পরিচয় হলো- তিনি বাতিঘর প্রকাশনীর প্রতিষ্ঠাতা প্রকাশক। তার জন্ম ঢাকায়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদে এক বছর অধ্যয়নের পর সেখান থেকে বেরিয়ে এসে তার সৃজনশীল সত্ত্বা বিকাশের উপযোগী আরেকটি বিষয় তথা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন মৌলিক রচনার আগেই বাংলার পাঠকের মনে জায়গা করে নিয়েছিলেন ভিনদেশী বিখ্যাত থ্রিলার অনুবাদ করার মধ্য দিয়ে।

ADD A REVIEW

Your Rating

4 REVIEW for নেমেসিস !

এক কথায় অসাধারণ। এত দ্রুতগতিতে গল্প এগিয়েছে, যখনই সময় পেয়েছি মোবাইল খুলে আর অন্য কোন এপ না, বইঘর খুলেছি। এরপর কি হবে, এরপর কি হবে এমন একটা টানটান উত্তেজনা কাজ করে। এত টানটান উত্তেজনার পর টুয়িস্ট টা আসলেই একটু দুর্বল। তবে যাপিত জীবনের যাবতীয় চিন্তাভাবনাকে পাশ কাটিয়ে নেমেসিস বইটা নিয়ে ভালো কিছু সময় কাটলো, লেখককে ধন্যবাদ।

Fatema Bristy 2022-08-20 19:03:53

good

Hasan Mahmud 2022-03-11 19:24:07

পাঠ প্রতিক্রিয়া: এক কথায় বললে, বইটি আমার ভালো লেগেছে। তবে শেষের টুইস্টগুলো ঠিক মনঃপূত হয়নি। সেটা একান্তই ব্যক্তিগত পছন্দ। আপনার পছন্দ হতেও পারে। ভালো লাগা ⭕প্রথম ২০ পৃষ্ঠা পার হবার প্রচণ্ড গতিতে এগোয় বইটি। দ্বিতীয় বই কন্ট্রাক্টের মতো এটাও চরম ফাস্ট পেসড্। এরকম গতির বই কমই পড়েছি। ⭕জেফরি বেগের তদন্ত পদ্ধতি ভালো লেগেছে।পাশাপাশি বেগের মানসিক অবস্থা লেখক ভালোভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন।এটা আমার ব্যক্তিগত পছন্দের দিক। তদন্তকারীর তদন্তের সাথে তার মানসিক অবস্থা দেখানোটা গুরুত্বপূর্ণ। ⭕প্রতিটি অধ্যায়ের শেষ চমৎকার সব ক্লিফ হ্যাঙ্গার। পড়া থামানোর সুযোগই পাইনি। ⭕বাস্টার্ডের চমৎকার সব কৌশলের সাথে পাঠক কন্ট্রাক্টে পরিচিত হবেন। এখানেও তার একটা উদহারণ আছে। ⭕কাহিনী বিন্যাস খুব সুন্দর বইটার। যা ভালো লাগেনি: ভালো না লাগার ব্যাপার কমই আছে। ⭕প্রথমত টুইস্টগুলো আমার ঠিক পছন্দ হয়নি। অনেকটা প্রেডিক্টেবল। সিরিজের দ্বিতীয় বই ❝কন্ট্রাক্ট❞ পড়া থাকাটাও তার একটা কারণ হতে পারে। ⭕কন্ট্রাক্টের মতো এখানেও আরও একটু দৌড় ঝাঁপ আশা করেছিলাম। তবে এই বইতে সেটা কমই আছে। যাই হোক,প্রথম বই হিসেবে এমনটাই যুক্তিযুক্ত আসলে। চরিত্রায়ন: চরিত্রায়ন মোটামুটি ভালো। লেখক এই বইয়ে জেফরির দিকে বেশি নজর রেখেছেন। তার চরিত্রায়ণটা মোটামুটি ভালোই ছিল। পাশাপাশি মানসিক ব্যাপার স্যাপারও ফুটিয়ে তুলেছেন সুন্দরভাবে। তবে আরেকটু ভালো করা যেত। অন্যান্য চরিত্রগুলো কাহিনীর সাথেই এগিয়ে গিয়েছে। সি ই এ সিদ্দিকী সাহেবের চরিত্রটাও মোটামুটি ভালোভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। বাস্টার্ড এই বইয়ে তেমন নজর পায়নি। লেখনশৈলী: দীর্ঘ সময় অনুবাদের পর লেখক প্রথম মৌলিক বইটি প্রকাশ করেন। এতে তার লেখায় সম্পূর্ণ পজিটিভ একটা প্রভাব পড়েছে। লেখা খুবই সাবলীল। আর চমৎকার। যেভাবে তিনি কাহিনী তুলে ধরেন তা পাঠককে আমোদিত করতে বাধ্য। নাজিম ভাইয়া আসলেই চমৎকার লেখক আর দুই বাংলার থ্রিলার সম্রাট। আমাদের দেশে আজ থ্রিলার জনরা নিয়ে যে পাঠকবেইস তৈরি হয়েছে,সেবা প্রকাশনীর পর সেখানে বাতিঘরের অবদান অনস্বীকার্য। আর মৌলিক থ্রিলার জনরাটি প্রতিষ্ঠা করার দিক থেকে লেখক নাজিমউদ্দিন একজন অগ্রদূত। লেখকের বিভিন্ন সাক্ষাৎকার পড়লে বুঝতে পারবেন কতোটা স্ট্রাগল করতে হয়েছে তাকে। সবমিলিয়ে,নেমেসিসকে ভালো বইই বলতে হয়। দুর্দান্ত গতির একটি উপভোগ্য থ্রিলার।

Tarik Mahtab Siam 2022-01-21 21:17:23

এই বইটি পড়ার আগেই বইয়ের বেশকিছু রিভিউ পড়ে ফেলেছিলাম। যে রিভিউগুলো জুড়ে অবশ্য সমালোচনাই বেশী ছিলো। লেখক হুমায়ুন আহমেদের সাথে মিল এবং অশ্লীলতা ছিলো সমালোচনার মূল অংশ। আমার কাছে অশ্লীলতা খুব একটা বেশী মনে হয়নি। খুবই সামান্য যেটুকু আছে সেটা একেবারেই কাহিনীর সাথে সামঞ্জস্য পূর্ণ। মানে অতোটা খারাপ লাগার মতো নয়, যতোটা অনেকেই বলেছেন। আর লেখক হুমায়ুন আহমেদের সাথে মিলের যে ব্যাপারটা সেটা আসলেই একটু বেশীই মিল হয়ে গেছে। তবে পুরো বই পড়ার পর আবার জায়েদ রহমানের চরিত্রের অংশটুকু মাথায় নিলে সেখানে আর হুমায়ুন স্যারের সাথে মিল পাওয়া যায় না। তবুও বিষয়টাকে নিতান্তই কাকতলীয় বলেও উড়িয়ে দেয়াও যায় না। আক্ষরিক অর্থেই মেয়ের বান্ধবীকে বিয়ের এই সামান্য অংশটুকু না থাকলেই হয়তো আর এই বিষয়টা নিয়ে খচখচানির জায়গাটা থাকতো না। তবে লেখকের প্রথম মৌলিক থ্রিলার হিসাবে এই বইটা খুবই চমৎকার একটা বই। পক্ষাঘাতগ্রস্ত একজন লেখকের খুনের তদন্তের অংশটুকু জেফরি বেগের পয়েন্ট অফ ভিউ থেকে যেভাবে বর্ণনা করা হয়েছে তা খুবই উপভোগ্য ছিলো৷ নিত্য নতুন রহস্য আর সেই রহস্যের উদঘাটন করার বিভিন্ন কৌশল একটা রহস্য থ্রিলারের যা যা দরকার তার সবই এই বইতে আমি পেয়েছি। সাথে একজন সাংবাদিকের রহস্য, জেফরির সহকারী জামানের কারেক্টার, অমল্য বাবুর রহস্যময় উপস্থিতি, জেফরি বেগের ব্যক্তিগত জীবনের টানাপোড়েন এবং "এপ্রিল ফুল" বইয়ে বাড়তি মাত্রা যোগ করেছে। খুবই সুপাঠ্য ছিলো আমার জন্য। রেটিংঃ ০৮/১০

Zakaria Minhaz 2022-01-21 15:54:43

এ রকম আরও বই