হুমায়ূন আহমেদ—কিংবদন্তি শিল্পস্রষ্টা। প্রয়াণের এত বছর পরও তাঁর সৃষ্টি একইরকম জনপ্রিয়, তাঁর সম্পর্কে তীব্র কৌতূহল ভক্ত-অনুরাগীদের। বোদ্ধারা তাঁর শিল্পসৃষ্টির অনুপুঙ্খ বিশ্লেষণ করবেন। এই গ্র্রন্থের লেখক সে-পথে যান নি। তিনি খুব কাছ থেকে, বলা যায় ছায়াসঙ্গী হয়ে, দেখেছেন এই মহান শিল্পস্রষ্টাকে, বিরতিহীনভাবে প্রায় পনেরো বছর। দেখেছেন এবং বোঝার চেষ্টা করেছেন। লেখকের দেখা আর বোঝার মধ্য দিয়ে ব্যক্তি হুমায়ূন আহমেদ অনেকখানি প্রকাশ্য হয়ে উঠবেন এই গ্রন্থে। ‘গর্তজীবী’ হুমায়ূন আহমেদ সীমাবদ্ধ আপন গণ্ডির বাইরে বেরুতেন না কখনো। তাই ব্যক্তিমানুষটি সম্পর্কে বাইরের তথ্য আছে খুব সামান্যই। বিভিন্ন ধরনের কিছু লেখার সমন্বয়ে এই গ্রন্থ নিভৃতচারী এই মানুষটি সম্পর্কে আমাদের স্বচ্ছ ধারণা দেবে, মেটাবে অনেক কৌতূহল।

জন্ম ১ অক্টোবর, ১৯৬৬, সিরাজগঞ্জে। প্রকাশনা শিল্পের অন্যতম এক নাম মাজহারুল ইসলাম। এই পরিচয় ছাপিয়ে তিনি আলোচিত লেখক হিসেবেও। এটি তাঁর দ্বিতীয় গ্রন্থ। স্কুলজীবন থেকে মাজহারুল ইসলাম সম্পৃক্ত নানা সৃজনশীল কর্মকাণ্ডের সঙ্গে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রাবস্থায় যুক্ত হন গ্রুপ থিয়েটার আন্দোলনে। এ সময় তিনি মুদ্রণ ও প্রকাশনা শিল্পের সঙ্গেও জড়িত হন অপেশাদার হিসেবে। গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জনের কয়েক বছরের মধ্যেই ১৯৯৬-এর জানুয়ারিতে পাক্ষিক ‘অন্যদিন’ সম্পাদনা ও প্রকাশনার মাধ্যমে শুরু হয় এক নতুন যাত্রা। পরের বছর সৃজনশীল প্রকাশনায় উৎকর্ষের সন্ধানে শুরু করেন ‘অন্যপ্রকাশ’। বই প্রকাশে পেশাদারিত্ব আর মুদ্রণ ও বিপণনের আধুনিক কলাকৌশল প্রয়োগের মাধ্যমে অল্প সময়েই তা মনোযোগ আকর্ষণ করে সবার। বাংলা ভাষার জননন্দিত লেখক হুমায়ূন আহমেদের প্রায় সকল বই এক দশকের বেশি সময় ধরে প্রকাশের ফলে একটা অভিনব জুটি তৈরি হয়, লেখক-প্রকাশকের। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক বইমেলায় অংশগ্রহণের অভিজ্ঞতায় স্বপ্ন দেখেন বাংলাদেশের এই শিল্পও পৌঁছাবে এমন এক উচ্চতায়, যার অহংকারের অংশীদার হবে প্রতিটি বাঙালি। তাঁর পরিচালনায় নির্মিত হয়েছে কয়েকটি টিভি নাটক, টেলিফিল্ম ও ধারাবাহিক নাটক। সফলতা পেয়েছেন সেখানেও।

No review found

Write a review

    Bad           Good
content title
Loading the player...
Boighor

Stay Connected