সিদ্ধার্থ হক তাঁর নতুন কাব্যগ্রন্থে আমাদের সবার পরিচিত লজিং মাস্টারকে দেখার এক নতুন চোখ উপহার দিয়েছেন। জাঁকজমকের বাইরে জীবন কাটানো লজিং মাস্টারের নিঃশ্বাস যেন এঁকেছেন তিনি। ব্যতিক্রমী মেধাবী ও অনুভূতিশীল এই কবি সৃজন করতে ভালোবাসেন। এটি তাঁর এক নিরন্তর অন্বেষণ। কবিতার ভাষায় ‘লজিং মাস্টার’ গভীর এক জীবনানুসন্ধানের গল্প। লজিং মাস্টারের একাকিত্বের প্রতিটি মুহূর্ত যেন কবি খুব কাছ থেকে দেখেছেন। একা থাকার দুঃখে, ভয়ে, হতাশায় মুহ্যমান লজিং মাস্টারকে প্রেম ও যৌনতার অসম্ভব আশাও যে জাপটে ধরে কখনো কখনো, সেটিও কবি দেখেছেন অন্তর দিয়ে। পৃথিবীর সব আয়োজনই যৌবনের জন্য। কিন্তু লজিং মাস্টারের যৌবন কখন ছিল, আর কখন হারিয়ে গেল সে জানে না। তার ছাত্রী কত আগে চলে গেছে উড়ন্ত নৌকায়, পরদেশে স্বামীর সঙ্গে। সঙ্গে নিয়ে গেছে বহু পাখি, বহু ছায়া, বহু গাছ। মফস্বল জীবনের গাঢ় নির্জনতায় তবুও লজিং মাস্টার জীবনবিমুখ হয় না, পালিয়েও যায় না।

কবি সিদ্ধার্থ হকের জন্ম বরিশালে। পিতার চাকরিসূত্রে শৈশব থেকে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ঘুরে বেড়িয়েছেন। পৃথিবীর বহু দেশ তিনি ঘুরেছেন, একাদিক দেশে বসবাস করেছেন, যার প্রভাব তার কবিতায় দেখা যায়। প্রকাশিত বইয়ের মধ্যে আছে এ নগর কেঁপে ওঠে ভোরে [কবিতা, ১৯৯৩], বাতাস মুদ্রণ, সম্ভবত [কবিতা, ১৯৯৫], বিবিধ মুখোশ [কবিতা, ১৯৯৬], ঘুমহীন ক্যানভাস [কবিতা, ১৯৯৯], জলে ডোবা মাঠে, সারারাত [কবিতা, ২০১৩], শূন্যের ভিতরে [কবিতা, ২০১৬], ভাসমান [উপন্যাস, ২০০২]।

No review found

Write a review

    Bad           Good
content title
Loading the player...
Boighor

Stay Connected