আমি আর এলিটা দাঁড়িয়ে আছি ব্যালকনিতে। জমে যাওয়া ঠাণ্ডায় ঘুমিয়ে গেছে পুরো পারো। নিস্তব্ধ পৃথিবী। এলিটার নিঃশ্বাসের শব্দ স্পষ্ট। শব্দের সাথে অনুমান করা যায় তার নাকের কাছটা তিরতির করে কেঁপে উঠছে। শরীরে পুলওভার চাপিয়েছি। কে জানতো ফের এই বেজক্যাম্পেই এসে ঠেকবো, কে জানতো আবার আমাদের দু’জনকে প্রকৃতি এই বারান্দায় এনে ফেলবে, ঠিক এমনই নিশিরাতে। ঠিক যেন সেই রাত ফিরে এসেছে, যেখান থেকে ভালো মন্দের শুরু। যেখান থেকে টর্নেডো শুরু হয়ে পরিণত হলো শান্ত সমুদ্রে। আজকের সাথে সেদিনের পার্থক্য এক জায়গায়। সে রাতে চাঁদ ছিল না। আজকের ঘুমন্ত পারোর আকাশে এক থালা নিঃসঙ্গ চাঁদ রয়েছে। পারোর শীত, কুয়াশার চাদর জোছনাকে মলিন করতে পারেনি বটে। ফিনকি দিয়ে ঝরছে চাঁদের আলো। এলিটার মুখ যেন গ্রামের মেলা থেকে কেনা এক টুকরো ঝকঝকে আয়না, আলো প্রতিফলিত হয়ে চাঁদকেই ফিরিয়ে দিচ্ছে।

জন্ম ১৯৮৮ সালের ৮ জানুয়ারি দিনাজপুর জেলার রেলওয়ে শহর পার্বতীপুরে। ব্রিটিশ ছোঁয়া লাল ইট আর রেলকে সমান্তরালে সখ্য রেখে বেড়ে ওঠা। শৈশব-কৈশোর কেটেছে সেখানেই। জীবনের গুরুত্বপূর্ণ একটা সময় কেটেছে রংপুরে। পড়াশোনা করেছেন কারমাইকেল কলেজ, ঢাকা কলেজ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। বর্তমানে সাংবাদিকতার সঙ্গে যুক্ত। প্রকাশিত গ্রন্থসমূহ - বেজক্যাম্প হোটেলের মধ্যরাত, তনিমার সুইসাইড নোট, ঈশ্বরদী বাইপাস প্রভৃতি।

No review found

Write a review

    Bad           Good
content title
Loading the player...
Boighor

Stay Connected