Bhoutik Gahware Mrityudut

ভৌতিক গহ্বরে মৃত্যুদূত

Product Summery

লন্ডনের একটা মনোরম হোটেল সানলাইট। এগারো তলাবিশিষ্ট এই হোটেলটাতে সিনেমা হল, সুইমিংপুল, মনোমুগ্ধকর নাচঘর, খেলাধুলার সরঞ্জাম, এমনকি ছাদে বল খেলার মাঠও রয়েছে। এই সানলাইট হোটেলের নয় তলার বিশিষ্ট এক কামরায় মিঃ আরমানবেশী দস্যু বনহুর নিজের বিশ্রামস্থল বা আস্তানা গড়ে নিয়েছে। বনহুরের কামরার মধ্যে রয়েছে ড্রেসিরুম, বাথরুম। এ ছাড়া আছে রুমের পেছনে একটা বেলকুনি। বনহুর মিঃ আরমানের ড্রেস খুলে, দাড়ি-গোঁফ খুলে সম্পূর্ণ নিজের পোশাকে এসে এই বেলকুনিতে বসে। এখানে সে গভীর মনোযোগ সহকারে চিন্তা করে কিভাবে অগ্রসর হবে। গতরাতে মিসেস জ্যাসিলিনের মৃত্যু তাকে ভীষণভাবে ভাবিয়ে তুলেছে। মিসেস জ্যাসিলিন একজন নিষ্ঠাবান নার্স ছিলেন। অন্ধ হসপিটালে তার সুনাম রয়েছে অনেক। সবাই তাকে শ্রদ্ধার চোখে দেখেন কারণ তার চরিত্র এবং চাল চলন ছিল অত্যন্ত ভদ্র। মিসেস জ্যামিলিনের সঙ্গে মাঝে মাঝে মিঃ আরমানের বেশে তার দেখা সাক্ষাৎ এবং কথাবার্তাও হয়েছে। কই কখনও তো তার মধ্যে কোনো অসৎ আচরণ বা ঐ ধরনের কোনো কিছু পরিলক্ষিত হয়নি। হলে নিশ্চয়ই সন্দেহ জাগতো। হয়তো বা কোনো রহস্যময় পরিবেশের সঙ্গে তিনি জড়িত ছিলেন।

Tab Article

লন্ডনের একটা মনোরম হোটেল সানলাইট। এগারো তলাবিশিষ্ট এই হোটেলটাতে সিনেমা হল, সুইমিংপুল, মনোমুগ্ধকর নাচঘর, খেলাধুলার সরঞ্জাম, এমনকি ছাদে বল খেলার মাঠও রয়েছে। এই সানলাইট হোটেলের নয় তলার বিশিষ্ট এক কামরায় মিঃ আরমানবেশী দস্যু বনহুর নিজের বিশ্রামস্থল বা আস্তানা গড়ে নিয়েছে। বনহুরের কামরার মধ্যে রয়েছে ড্রেসিরুম, বাথরুম। এ ছাড়া আছে রুমের পেছনে একটা বেলকুনি। বনহুর মিঃ আরমানের ড্রেস খুলে, দাড়ি-গোঁফ খুলে সম্পূর্ণ নিজের পোশাকে এসে এই বেলকুনিতে বসে। এখানে সে গভীর মনোযোগ সহকারে চিন্তা করে কিভাবে অগ্রসর হবে। গতরাতে মিসেস জ্যাসিলিনের মৃত্যু তাকে ভীষণভাবে ভাবিয়ে তুলেছে। মিসেস জ্যাসিলিন একজন নিষ্ঠাবান নার্স ছিলেন। অন্ধ হসপিটালে তার সুনাম রয়েছে অনেক। সবাই তাকে শ্রদ্ধার চোখে দেখেন কারণ তার চরিত্র এবং চাল চলন ছিল অত্যন্ত ভদ্র। মিসেস জ্যামিলিনের সঙ্গে মাঝে মাঝে মিঃ আরমানের বেশে তার দেখা সাক্ষাৎ এবং কথাবার্তাও হয়েছে। কই কখনও তো তার মধ্যে কোনো অসৎ আচরণ বা ঐ ধরনের কোনো কিছু পরিলক্ষিত হয়নি। হলে নিশ্চয়ই সন্দেহ জাগতো। হয়তো বা কোনো রহস্যময় পরিবেশের সঙ্গে তিনি জড়িত ছিলেন।

Tab Article

রোমেনা আফাজ প্রখ্যাত ঔপন্যাসিক। তাঁর জন্ম বগুড়া জেলার শেরপুর থানায় ১৯২৬ সালে । তিনি ‘দস্যু বনহুর’ সিরিজের জন্য বাঙালি পাঠক সামজের কাছে বেশ পরিচিত। রোমেনা আফাজ লেখালেখি শুরু করেন শৈশব থেকেই। ছোটগল্প, কবিতা, কিশোর উপন্যাস, সামাজিক উপন্যাস, গোয়েন্দা সিরিজ ও রহস্য সিরিজ রচনা করেছেন তিনি। বাবা ছিলেন পুলিশ অফিসার। তার মুখে অপরাধ ও অপরাধীদের রোমহর্ষক কথা শুনে রোমাঞ্চকর গল্পের প্রতি মোহ সৃষ্টি হয়। তার লেখা ‘দস্যু বনহুর’ ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করে। এর জন্যই তিনি বিখ্যাত হন। সাহিত্য ও শিল্পকলায় অসাধারণ অবদানের জন্য ২০১০ সালে স্বাধীনতা পুরস্কারে ভূষিত করা হয় রোমেনা আফাজকে।

ADD A REVIEW

Your Rating

0 REVIEW for ভৌতিক গহ্বরে মৃত্যুদূত !

এই লেখকের আরও বই

এ রকম আরও বই