বিজ্ঞানী জগদীশচন্দ্র বসুর পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও অভিজ্ঞতা নিয়ে লেখা হয়েছে ‘অব্যক্ত’ বইটি। তারহীন সংবাদ প্রেরণ, গাছেরও যে প্রাণ আছে তা এই রচনায় বর্ণনা করা হয়েছে। গাছ জীবিত থাকলে ক্রমাগত বাড়তে থাকে। গাছের নড়াচড়া দেখে বুঝা যায় তার গতি আছে। গাছের গতি হঠাৎ করে দেখা যায় না। তার দেহে ঘুরে ঘুরে জড়ানো লতা যেমন বাড়তে থাকে, গাছও তেমনি বাড়তে থাকে। এই বিষয়গুলো হয়ত আমরা এখন এক কথায় বুঝি। কিন্তু পুরো বইটি পাঠের মাধ্যমে এই আবিষ্কারের ক্রমবিকাশ সম্পর্কে জানা যাবে ।

জগদীশচন্দ্র বসু ১৮৫৮ সালে ময়মনসিংহ জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। জগদীশচন্দ্র বসু কলকাতার প্রেসিডেন্সি কলেজে সহকারী অধ্যাপক পদে যোগদানের পর থেকেই তাঁর শিক্ষক এবং যথার্থ অনুসন্ধানী গবেষকের বৈশিষ্ট্যমণ্ডিত জীবনের সূত্রপাত ঘটে। উদ্ভিদ জগতের সংবেদনশীলতা বিষয়ক গবেষণার প্রাণ-পদার্থবিদ্যা এবং উদ্ভিদ-শরীরতত্ত্ব বিষয়ক গবেষণায় তিনি সাফল্য পান। এসব ক্ষেত্রে তিনি তাঁর পদার্থবিদসুলভ গভীর দৃষ্টি এবং পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও দক্ষতার কার্যকরী প্রয়োগ ঘটান। জগদীশচন্দ্রের বিস্ময়কর কর্মউন্মাদনা এবং একাগ্রচিত্ত বিজ্ঞান সাধনার ফলেই এসব গবেষণা কর্ম সম্পাদন করা সম্ভব হয়েছিল। ১৯০৮ থেকে ১৯৩৪ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন বিষয়ে তিনি অসংখ্য গবেষণা প্রতিবেদন ও প্রবন্ধ রচনা করেন। তাঁর কিছু উল্লেখযোগ্য রচনাবলি হচ্ছে: Responses in the Living and Non-living (1902), Plant Responses as a Means of Physiological Investigations (1906) ইত্যাদি। ১৯৩৭ সালে আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন এ বিজ্ঞানীর সুদীর্ঘ কর্মময় জীবনাবসান হয়।

No review found

Write a review

    Bad           Good
content title
Loading the player...
Boighor

Stay Connected