‘নালক’ গৌতমবুদ্ধের জীবনকাহিনী নিয়ে লেখা একটি আখ্যানধর্মী গল্প। একদিন দেবলঋষি যোগে বসেছিলেন। ছোট্ট ছেলে নালক তাঁর সেবা করছিল। এমন সময় অন্ধকারে আলো ফুটল। চাঁদের আলো নয়, সুর্যের আলো নয়, সমস্ত আলো মিশিয়ে এক আলোর আলো। ঋষি নালককে বললেন, কপিলাবাস্তুতে বুদ্ধদেব জন্ম নেবেন। আমি তাকে দর্শন করতে চললাম, তুমি সাবধানে থেকো। একলা নালক চুপ করে রইলো বটতলায়। তার ধ্যানমগ্ন চোখের সামনে একের পর এক উঠতে লাগল বুদ্ধের সারা জীবনের ছবি। নালক আর দেবলঋষি কি দেখেছিল বিস্তারিত পাওয়া যাবে বইটিতে।

ভারতীয় চিত্রশিল্পী, নন্দনতাত্ত্বিক অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুর ১৮৭১ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা ও পিতামহ ছিলেন একাডেমিক নিয়মের প্রথম ও দ্বিতীয় প্রজন্মের শিল্পী। এ সুবাদে তিনি ছোটবেলাতেই চিত্রকলার আবহে বেড়ে ওঠেন। পড়াশোনা সংস্কৃত কলেজে। ১৮৯০ সালে রবীন্দ্রনাথের খামখেয়ালি সভার সদস্য হন। যুক্ত হন কবিতার সাথে, নাটকের সাথে। ১৮৯৬ সালে কোলকাতা আর্ট স্কুলের সহকারী অধ্যক্ষ নিযুক্ত হন। গল্প, কবিতা, চিঠিপত্র, শিল্প আলোচনা, যাত্রাপালা, পুঁথি, স্মৃতিকথা সব মিলিয়ে তাঁর প্রকাশিত রচনা সংখ্যা প্রায় চারশ’। তাঁর উল্লেখযোগ্য গ্রন্থের মধ্যের রয়েছে- ‘শকুন্তলা’, ‘ক্ষীরেরপুতুল’, ‘রাজকাহিনী, ‘ভূত পত্রীর দেশ’, ‘নালক’, ‘বুড়ো আংলা’, ‘রং বেরং’, ‘ভারত শিল্পে মূর্তি’ ইত্যাদি।

No review found

Write a review

    Bad           Good
content title
Loading the player...
Boighor

Stay Connected