1
১৫ ই আগস্টের কবিতা
5:17
1
১৫ ই আগস্টের কবিতা
5:17

কবির ইচ্ছা ১৫ই আগস্টের বিশেষ দিনটিকে কেন্দ্র করে একটি কবিতা লেখার। ইংরেজদের দাসত্ব থেকে মুক্তি পাওয়া ভারতের আনন্দ প্রকাশ পাবে তাঁর কবিতায়। কিন্তু কোনোভাবেই লিখতে পারছেন না। কবিতার জন্য তাঁর মাঝরাতে ঘুম ভেঙে গেলেও কবিতা এলো না। কলকাতার দুরবস্থা, দুর্ভিক্ষের চেহারা চোখে ভাসতে লাগলো। ১৫ই আগস্ট আর বেশি দেরি নেই, এই কথাটি তাঁর মাথায় বারবার ঘুরতে থাকলো। কবি হিসেবে তাঁর বেশ সুনাম থাকলেও স্বাধীনতার কবিতা লিখতে ব্যর্থ হচ্ছেন। এর বদলে তিনি ‘ফসল’ ও ‘বন্যা’ নামে দুটি কবিতা লিখে বসেছেন। একদিন এক সাহিত্যিক বন্ধু পরামর্শ দিয়ে কবিকে বললেন, স্বাধীনতা দেখে তোমার যে আনন্দ হয়েছে সেটুকু কবিতায় ফুটাও। ১৫ই আগস্টকে স্বাগত জানিয়ে কবিতা লিখতে বসো না। এই পরামর্শ শুনে যখন কবি কলম ধরলেন তখন দ্রুতগতিতে কবিতা আসতে শুরু করলো।

মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম ১৯০৮ সালে। তার প্রকৃত নাম প্রবোধকুমার বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের প্রভাবে পৃথিবী জুড়ে মানবিক মূল্যবোধের চরম সংকটময় মূহুর্তে বাংলা কথাসাহিত্য যে কয়েকজন লেখকের হাত ধরে নতুন এক বৈপ্লবিক ধারা সূচিত হয় মানিক বন্দ্যোপাধ্যায় ছিলেন তাদের মধ্যে অন্যতম। ফ্রয়েডীয় মনঃসমীক্ষণ ও মার্কসীয় শ্রেণীসংগ্রাম তত্ত্ব তার লেখায় গভীরভাবে প্রভাব বিস্তার করে আছে। তার রচনায় ফুটে উঠেছে মধ্যবিত্ত সমাজের কৃত্রিমতা, শ্রমজীবী মানুষের সংগ্রাম, নিয়তিবাদ ইত্যাদি। তার জীবনের অতি ক্ষুদ্র পরিসরেও তিনি রচনা করেন চল্লিশটি উপন্যাস ও তিনশত ছোটোগল্প। পুতুলনাচের ইতিকথা, দিবারাত্রির কাব্য, পদ্মা নদীর মাঝি ইত্যাদি উপন্যাস ও অতসীমামী, প্রাগৈতিহাসিক, ছোটবকুলপুরের যাত্রী ইত্যাদি গল্পসংকলন বাংলা সাহিত্যের অন্যতম শ্রেষ্ঠ সম্পদ। ১৯৫৬ সালে; মাত্র আটচল্লিশ বছর বয়সে এই কথাসাহিত্যিকের মৃত্যু হয়।

No review found

Write a review

    Bad           Good
content title
Loading the player...
Boighor

Stay Connected