বাংলা সাহিত্যের ছোটদের গল্পের প্রবাদপ্রতিম মানুষ উপন্দ্রেকিশোর রায়চৌধুরি। আলাদা করে ছোটদের জন্য তিনিই হয়তো প্রথম বাঙালি হিসেবে বই লেখার কথা চিন্তা করেন। চিন্তাশীল ও বৃদ্ধিদীপ্ত লেখনীর মাধ্যমে তিনি শিশুদের মনন গঠনে রেখেছেন অসামান্য অবদান। এছাড়া তাঁর বইয়ে গল্পের পাশাপাশি কালি-কলমের আঁচড়ে চমৎকার সব কার্টুন ও ড্রয়িং শিশুদের তো বটেই সব বয়েসী মানুষকেই তাক লাগিয়ে দেয়। উপন্দ্রেকিশোর রায়চৌধুরী একই ধারায় ‘টুনটুনির বই’-টিও সৃষ্টি করেছেন। ‘টুনটুনির বই’-এর গল্পগুলো শুধু মজাদার বিনোদন বা হাসির খোরাকই নয়, শিশুদের মনকে ধীরে ধীরে চিন্তাশীল করে তুলতে সহযোগিতা করবে।

ময়মনসিংহ জেলার মসুয়া গ্রামে উপেন্দ্রকিশোর জন্মগ্রহণ করেন। ১৮৮৩ সালে ছাত্রাবস্থায় সখা পত্রিকায় তাঁর প্রথম রচনা প্রকাশিত হয়। উপেন্দ্রকিশোর শিশুকিশোরদের জন্য বহুসংখ্যক সাহিত্য পুস্তক রচনা করেছেন, এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ: ছোটদের রামায়ণ, ছোটদের মহাভারত, সেকালের কথা, মহাভারতের গল্প, ছোট্ট রামায়ণ, টুনটুনির বই এবং গুপী গাইন বাঘা বাইন। বইগুলির প্রচ্ছদ এবং ভেতরের ছবিও তিনি নিজেই অঙ্কন করেন। তিনি ছিলেন একাধারে লেখক চিত্রকর, প্রকাশক, শখের জ্যোতির্বিদ, বেহালাবাদক ও সুরকার। সন্দেশ পত্রিকা তিনিই শুরু করেন যা পরে তার পুত্র সুকুমার রায় ও পৌত্র সত্যজিৎ রায় সম্পাদনা করেন। মুদ্রণশিল্পেও উপেন ছিলেন অগ্রগণ্য। মুদ্রণশিল্পের উপর পড়ার জন্য তিনি পুত্র সুকুমার রায়কে ইউরোপে পাঠান। পিতা-পুত্রের গভীর গবেষণায় বাংলার মুদ্রণশিল্প বর্তমান অবস্থায় এসে পৌঁচেছে। নানামুখী যোগ্যতার সমাবেশ ঘটলেও উপেন শিশুসাহিত্যিক রূপেই অধিক পরিচিত। এ শিশুসাহিত্য পরবর্তীসময়ে তাঁর পারিবারিক ঐতিহ্যে পরিণত হয়। কন্যা সুখলতা রায় ও পুণ্যলতা চক্রবর্তী এবং পুত্র সুকুমার রায় ও সুবিনয় রায় পরবর্তীকালে শিশুসাহিত্যে প্রতিষ্ঠা অর্জন করেন

No review found

Write a review

    Bad           Good
content title
Loading the player...
Boighor

Stay Connected