স্বামী বিবেকানন্দ কলকাতার এক উচ্চবিত্ত হিন্দু বাঙালি পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। ছোটোবেলা থেকেই আধ্যাত্মিকতার প্রতি তিনি আকর্ষিত হতেন। তার গুরু রামকৃষ্ণ দেবের কাছ থেকে তিনি শেখেন, সকল জীবই ঈশ্বরের প্রতিভূ; তাই মানুষের সেবা করলেই ঈশ্বরের সেবা করা হয়। রামকৃষ্ণের মৃত্যুর পর বিবেকানন্দ ভারতীয় উপমহাদেশ ভালোভাবে ঘুরে দেখেন এবং ব্রিটিশ ভারতের আর্থ-সামাজিক অবস্থা সম্পর্কে প্রত্যক্ষ জ্ঞান অর্জন করেন। তার রচিত প্রাচ্য ও পাশ্চাত্য গ্রন্থটি প্রথম প্রকাশিত হয় ১৩০৯ বঙ্গাব্দে। এই সংস্করণের পরিশিষ্ট-২ এ স্বামীজি’র চিকাগো বক্তৃতা সংযোজন করা হলো। কারণ প্রাচ্য ও পাশ্চাত্য সম্বন্ধে চিকাগো বক্তৃতায় অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ও তত্ত্ব স্বামীজি তাঁর বক্তৃতায় উল্লেখ করেছেন। আশা করি পাঠক বিষয়টি উপভোগ করবেন।

স্বামী বিবেকানন্দ ছিলেন ভারতে হিন্দু পুনর্জাগরণের অন্যতম পুরোধা ব্যক্তিত্ব। সেই সঙ্গে ব্রিটিশ ভারতে ভারতীয় জাতীয়তাবাদের ধারণাটিও তিনি প্রবর্তন করেন। একই সঙ্গে তিনি লেখক হিসেবেও প্রতিষ্ঠিত। দার্শনিক, ধর্মীয়-সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, রামকৃষ্ণ মিশন প্রতিষ্ঠাতা স্বামী বিবেকানন্দ এক অনন্য সাধারণ প্রতিভা। ১৮৬৩ সালে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। স্বামীজি এমন একজন মহান ব্যক্তিত্ব ছিলেন যাঁর উচ্চ চিন্তাধারা, আধ্যাত্মিক জ্ঞান ও সাংস্কৃতিক অভিজ্ঞতা প্রত্যেক মানুষের মনে এক গভীর ছাপ ফেলেছিল। তাঁর রচিত বিভিন্ন প্রবন্ধ ও ধর্মীয় উপদেশমূলক বইগুলোকে একত্র করে রামকৃষ্ণ মিশন বিবেকানন্দ রচনাবলী নামে প্রকাশ করেছেন। তৎকালীণ ভারতীয় সমাজ ব্যবস্থার উপর ঐতিহাসিক দালিলিক ভিত্তি হিসেবেও তাঁর রচনাবলী গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে আছে। ১৯০২ সালের তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

No review found

Write a review

    Bad           Good
content title
Loading the player...
Boighor

Stay Connected