আমেরিকা থেকে বারো বছর পর ঢাকা ফিরেছে রুহুল ইসলাম উল্লাস। এইচ.এস.সি পাশের পর বৃত্তি নিয়ে সে আমেরিকায় পড়তে গিয়েছিল। গত ছয় মাস আগে গ্রীন কার্ড পেয়েছে। ছোট বোন কান্তির সাথে গল্প করছিল উল্লাস। হঠাৎ অপরিচিত এক মেয়ের ফোন আসলো। তার নাম নাতাশা। সে উল্লাসের সাথে দেখা করতে চায়। দেখা করে অবাক হয় উল্লাস। নাতাশা অসম্ভব সুন্দরী। কিন্তু এই সৌন্দর্য-ই তার জন্য কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে। আলী জুলফিকার ক্ষমতাসীন দলের নেতা। সে নাতাশাকে পছন্দ করে। বিয়ে করতে চায়। নাতাশা ও তাদের বাড়ির প্রতি লোভ তার। সে জন্য নাতাশা উল্লাসের সহযোগিতা নিয়ে আমেরিকা চলে যেতে চায়। জুলফিকারের হাত থেকে নাতাশাকে রক্ষা করার চেষ্টা করে উল্লাস।

রাহাত খান (১৯ ডিসেম্বর ১৯৪০ - ২৮ আগস্ট ২০২০) ছিলেন বাংলাদেশের একজন কথাশিল্পী ও সাংবাদিক। ছোটগল্প ও উপন্যাস এই উভয় শাখাতেই তার অবদান উল্লেখযোগ্য। দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকায় তিনি ষাটের দশক থেকে কর্মরত ছিলেন। রাহাত খান ছোটগল্প ও উপন্যাস- উভয় শাখাতেই অবদান রেখেছেন। ১৯৭২ সালে তার প্রথম গল্পগ্রন্থ অনিশ্চিত লোকালয় প্রকাশিত হয়। পরের বছর তাঁর ছোটগল্পের জন্য তিনি বাংলা একাডেমির সাহিত্য পুরস্কার লাভ করেন। ১৯৯৬ সালে তিনি বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক একুশে পদকে ভূষিত হন। তার উপন্যাস ও গল্পগ্রন্থে’র মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে অমল ধবল চাকরি, ছায়াদম্পতি, শহর, হে শূন্যতা, হে অনন্তের পাখি, মধ্য মাঠের খোলোয়াড়, এক প্রিয়দর্শিনী, মন্ত্রিসভার পতন, দুই নারী, কোলাহল প্রভৃতি।

No review found

Write a review

    Bad           Good
content title
Loading the player...
Boighor

Stay Connected