Jaleswar

জলেশ্বর

Product Summery

উপন্যাসের একটি অংশ, ‘নদীর নাম জলেস্বর। সমুদ্রের বয়সী কন্যা। সকাল-বিকেল দু’কূল ছাপিয়ে জোয়ার আসে। জলেশ্বরের জোয়ার-ভাটা মঙ্গল ফকির ও মন্তু মিস্ত্রি ছাড়া অন্যদের কাছে অদ্ভুত ঠেকে। আড়ালেখায় তো জোয়ার-ভাটা বোঝাই যেত না। অমবশ্যা-পূর্ণিমায় কাটারাজের পানি তুলনামূলক বেড়ে যেত বটে, কিন্তু তাতে নদীর কোনো পরিবর্তন ঘটত না। কাটারাজকে তখন খানিকটা ফোলা-ফাঁপা মনে হতো বটে, কিন্তু শীর্ণতা ঘুচত না মোটেই। অথচ জলেস্বরের এ কী বিচিত্র খেয়াল? সকালে কানায় কানায় পূর্ণ নদী, দুপুরে কুলের দশ-বারো হাত নিচে নেমে যায় পানি। বিকেলে আবার উল্টোসস্রাত শুরু হয়ে ঠিক আগের মতো পরিপূর্ণ হয়ে ওঠে নদীটা।’

Tab Article

উপন্যাসের একটি অংশ, ‘নদীর নাম জলেস্বর। সমুদ্রের বয়সী কন্যা। সকাল-বিকেল দু’কূল ছাপিয়ে জোয়ার আসে। জলেশ্বরের জোয়ার-ভাটা মঙ্গল ফকির ও মন্তু মিস্ত্রি ছাড়া অন্যদের কাছে অদ্ভুত ঠেকে। আড়ালেখায় তো জোয়ার-ভাটা বোঝাই যেত না। অমবশ্যা-পূর্ণিমায় কাটারাজের পানি তুলনামূলক বেড়ে যেত বটে, কিন্তু তাতে নদীর কোনো পরিবর্তন ঘটত না। কাটারাজকে তখন খানিকটা ফোলা-ফাঁপা মনে হতো বটে, কিন্তু শীর্ণতা ঘুচত না মোটেই। অথচ জলেস্বরের এ কী বিচিত্র খেয়াল? সকালে কানায় কানায় পূর্ণ নদী, দুপুরে কুলের দশ-বারো হাত নিচে নেমে যায় পানি। বিকেলে আবার উল্টোসস্রাত শুরু হয়ে ঠিক আগের মতো পরিপূর্ণ হয়ে ওঠে নদীটা।’

Tab Article

১৯৮০ সালে ফেনীর পরশুরামে জন্মগ্রহণ করেন স্বকৃত নোমান। মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ড থেকে কামিল পাশ করে তিনি ফেনীর সোনাগাজী ডিগ্রি কলেজ থেকে বিএ পাশ করেন। এই কথাসাহিত্যিক সমকালীন তরুন লেখকদের মধ্যে অগ্রগণ্য। লেখকের উল্লেখযোগ্য বই রাজনটী (উপন্যাস), বেগানা (উপন্যাস), হীরকডানা (উপন্যাস), নিশিরঙ্গিনী (গল্পগ্রন্থ), কালকেউটের সুখ (উপন্যাস), বালিহাঁসের ডাক (গল্প), আবদুশ শাকুরের জীবনী, প্রাচ্যের ভাব আন্দোলনের গতিধারা (প্রবন্ধ), খ্যাতিমানদের শৈশব (গবেষণা), গুণীজন কহেন (সাক্ষাৎকার সংকলন), বহুমাত্রিক আলাপ (সাক্ষাৎকার সংকলন), বাংলাদেশের সাম্প্রতিক গল্প (সম্পাদনা) প্রভৃতি।

ADD A REVIEW

Your Rating

1 REVIEW for জলেশ্বর !

"গুরাইদার মুখ থেকে কাটারাজের দশ-বারো মাইল ভাটিতে ডুমুরিয়া খাল। পাতদেউড়া নদী থেকে এই খালের উৎপত্তি। সানকি জলার শেষ মাথায় এসে একটা শাখা চলে গেছে জলেস্বরের দিকে, অন্যটি কাটারাজে এসে মিশেছে।\n\nআষাঢ়ের দুই কূল ভরা কাটারাজে নৌকা বাইতে বাইতে সান্দাররা ডুমুরিয়ার মুখে এসে থামল। এদিকে কোনো জনবসতি নেই। কাটারাজের ওই পারে বিস্তীর্ণ ক্ষেত, তারপর অজানা-অচেনা কত গ্রাম । ডুমুরিয়ার দুই তীরে জীর্ণ বেড়িবাঁধ, ঘন শরবন চলে গেছে কুলে কুলে। বাঁধের গাছগুলোর কোনোটি ঝুঁকে আছে খালের উপর, কোনোটির তলার মাটি ক্ষয়ে গেছে, কোনোটি-বা স্রোতের সঙ্গে লড়াই করে টিকে আছে কোমর সোজা করে।" ওনার বই অনেকদিন লিস্টে ছিল। আগে "শেষ জাহাজের আদমেরা" পড়তে চাইলেও কীভাবে যেন এটা আগে শুরু করি। সমকালীন, ভারাক্রান্ত। নদীরা এই বইয়ের মূল চরিত্র। ভাষার চমৎকার ব্যবহার অনেকদিন চোখে পড়েনি। নদী, নদীর পাড় আর পাড় ঘেঁষা মানুষদের বর্ণনাশৈলী বেশ উন্নত শব্দে গাঁথা হয়েছে। তবে নদীর বর্ণনায় "যৌবন" শব্দটার একটু অধিক ব্যবহার হয়ে গেছে বলে মনে করি।

Monif Shah Chowdhury 2022-07-13 19:27:08

এ রকম আরও বই