‘উষার দুয়ারে’ আনিসুল হকের ‘যারা ভোর এনছিলো’ উপন্যাসের দ্বিতীয় পর্ব। যদিও এটা ঠিক উপন্যাসের কাঠামোতে লিখিত নয়, অনেকটা স্মৃতিকথনের মতো। কিন্তু লেখক এর প্রেক্ষিতে বলেন, ‘যদিও উপন্যাসের বিষয়বস্তু ঐতিহাসিক ঘটনা ও ব্যক্তির উপস্থিতে রচিত; তবু এটি নিছক একটি উপন্যাস।’ বাঙালির মুক্তি সংগ্রামের প্রেক্ষাপট সৃষ্টির ধারাবাহিক ইতিহাস উপন্যাসটিকে বিশেষ করেছে। এখানে এসেছে, মহান ভাষা আন্দোলন, ৫৪ নির্বাচন, আওয়ামী লীগের মুসলিম শব্দ বর্জনের ইতিহাস। এসেছে একজন সাধারণ রাজনৈতিক কর্মীর জাতীয় নেতা হয়ে ওঠার গল্প। আছে বঙ্গবন্ধুর জীবনসঙ্গীনি ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ও বঙ্গবন্ধুর ব্যক্তিগত-সাংসারিক জীবনের নানা ঘটনা। আছে সেই সময়কার জাতীয় নেতৃবৃন্দকে ঘিরে নানান ঐতিহাসিক ঘটনা। বইটি পাঠককের কাছে শুধু একটি জাতির সংগ্রামের ইতিহাসকেই উপস্থাপন করেনি। করেছে একজন মহান নেতার মন-আত্মার-প্রেম-দ্রোহ-ভালবাসা-মানুষ সম্পর্কে নানান চিন্তার বিশ্লেষণ। যা সহজেই পাঠকের মন ছুঁয়ে যাবে। আর সবচেয়ে বড় বিষয় উপন্যাসের সাবলিল ভাষা শৈলী। এটি লেখকের বক্তব্যকে কখনও চোখের জলে, কখনও ঘৃণা, ক্ষোভ, ভালবাসায়, গর্বে-আপ্লুত করবে।

জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক আনিসুল হকের জন্ম নীলফামারী জেলায়। বুয়েটে পড়ার সময় থেকে কবিতা লেখায় ঝোঁক তৈরি হয়। সাংবাদিকতায়ও রয়েছে তাঁর বিশেষ খ্যাতি। আনিসুল হকের আলোচিত উপন্যাস ‘মা’, ‘আমার একটা দুঃখ আছে’, ‘বীর প্রতীকের খোঁজে,’ ‘নিধুয়া পাথার, ‘সেঁজুতি’, ‘তোমার জন্য’, ‘৫১বর্তী’, ‘আবার তোরা কিপ্টা হ’, ‘বেকারত্বের দিনগুলিতে প্রেম’, ‘ফাল্গুন রাতের আঁধারে’, ‘আয়েশামঙ্গল’, ‘বারোটা বাজার আগে’, ‘বিক্ষোভের দিনগুলিতে প্রেম’, ‘ভালোবাসা আমি তোমার জন্য কাঁদছি’, ‘যারা ভোর এনেছিল’ প্রভৃতি।

No review found

Write a review

    Bad           Good
content title
Loading the player...
Boighor

Stay Connected